Akhialamgir xx


21-Nov-2020 06:15

–তুমি এক্ষন আমার বাসায় আসো, আসলেই টের পাবা।–কি টের পাবো, সারপ্রাইজ? ” সপ্না ভীষণ খুশি হয়ে বলল।সপ্নার এটা আরও একটা সমস্যা। যখন খুশি হয় তখন সেটা অনেক বেশি করে প্রকাশ করে, আবার যখন কষ্ট পায় সেটা যত বড়ই হোক না কেন মতেই কষ্ট বুঝতে দেয় না অন্যকে। এজন্য আমি কয়েকবার মিস গাইডও হয়েছি।–হ্যাঁ, তাই ভাবতেছি Ctg যামু গা। আম্মুর সাথে দেখা করতে।–খুবই ভাল, যাও দেখা করে আসো আম্মুর সাথে। তবে আমার একটা রিকোয়েস্ট আছে।–কি? –মানে কিছু না। তুমি সোমবারের টিকেট কাট। বাকিটুকু পরে বুঝাইতেছি।–বাসায় আংকেল আছে না?

– না নাই। ইমারজেন্সি কলে সিঙ্গাপুর গেছে। আমি একা বাসাতে। প্লিজ আসো।আংকেল মানে আমার শ্বশুরও ডাক্তার ছিলেন। তখন ছিলেন মেডিকেলের প্রিন্সিপ্যাল, এখন রিটায়ার্ড করছেন । ও হল ওর আব্বু আম্মুর সিঙ্গেল মেয়ে, কোন ভাইবোন ছিল না । আর ওর আম্মুও ছোট থাকতেই মারা গিয়েছিলেন। অতএব বাসাতে একাই ছিল।–কিন্তু আমি তো আজকেই চলে যাওয়ার প্ল্যান করছি। সুমন আজই চলে যাবে। আমি পরে গেলে একা হয়ে যাবো।–“সুমন ভাইয়া গেলে গা,যাক গা। দরকার হয় আমি তোমার সাথে যাবো Ctg। প্লিজ আসবা বল, দুইদিনই তো,প্লিজ আসো না।” ও প্যানপ্যান শুরু করল–দেখি।– আসতোছ কখন?

She is very popular for her attractive beauty and personality .

bangladeshi xxx photo shakib khan and apu biswas nude xxxbokep risa tachibanaturkish sevda seslibig coocangry povjapanesetallbets405 julia ann superstaredit10 boys desi raped10 guy cum inside10 inch bbc twink10 inch plus cock11inch cok hotsix123abc789xyz13wayteens144older waitress older waitress15 barsha ko kt lai chikeko vidio Disclaimer: has a zero-tolerance policy against illegal pornography.

– জানি না,একটু পড়তে বসবো। তারপর টিউশনিতে যাব। ওখান থেকে ভালো লাগলে আসবো।–না, না, ভালো লাগার কিছু নাই। তুমি আসতেছ এটাই ফাইনাল ডিসিশন। আমি আর কিছুই শুনতে চাচ্ছি না।–তাহলে আসতে আসতে বিকেল হতে পারে।–নো প্রবলেম। তাইলে দেখা হবে তখন। খোদা হাফেজ, ভালো থাইকো।–ঠিক আছে, খোদা হাফেজ।এই বলে আমি কলটা কেটে দিলাম। প্রায় পাঁচ মিনিটের কল ছিল সেটা। এই পাগলীটা যদি আমার জীবনে না আসত তাহলে হয়ত আমি মেয়ে মানুষ কি জিনিসটাই জানতাম না। ওর সাথে পরিচয়টাও হয়েছিল হঠাৎ করে। সেই ঘটনাটা একটু বলি।আমি গিয়েছিলাম DMC তে একটা ভর্তি ফর্ম তুলতে। সেখানে গিয়ে ফর্মের কিউ দেখে আমারতো মাথা খারাপ হয়ে যাওয়ার অবস্থা। বুদ্ধি করলাম কোন স্টুডেন্টকে হাত করার । তাহলে হয়ত আমার কিউটাতে দাঁড়াতে হবে না। আমি একটা স্টুডেন্টের সার্কেলের পাশে গিয়ে ইন্টারাপ্ট করলাম। তখন মনে হয়েছিল ফ্রেন্ডদের সার্কেল। এক্সকিউজ মি বলতেই সপ্না ঘুরে আমার দিকে তাকাল। আমি পুরা বিষয়টা তাকে বলতেই ও একটা হাসি দিয়ে বলল, “চলেন আমার সাথে।” তখনও আমি জানি না যে আমি DMC’র প্রিন্সিপ্যাল এর মেয়ের সাথে কথা বলতেছিলাম।অফিস রুমে যাবার পথে ও অনেক কথা বলছিল। আমি শুধু হাঁ হু করছিলাম। সপ্নার চেহারাটা একটু লম্বাটে টাইপের গোল। কিছুটা প্যারাবোলা টাইপের। আর নাকটা খাড়া। যখন ও কথা বলছিল তখন এত দ্রুত হাত দুটো নাড়ছিল দেখে মনে হচ্ছিল ও স্ট্রিট ডান্সের প্র্যাকটিস করছে। আমার এখনও মনে আছে, ঐ দিন ও দুজনের গায়ে হাত লাগিয়ে দিয়েছিল। এজন্য ওকে স্যরিও বলতে হয়েছিল।সপ্নাকে সুন্দরী বলা যাবে কিনা সেটা আমি জানি না। তবে চেহারাটা দেখে কেমন যেন শান্তি শান্তি লাগে। মনের মাঝে একটা বিচিত্র আনন্দও অনুভূত হয়। এটার কারণ কি সেটা আমি এখন পর্যন্ত বুঝতে পারি নাই। সপ্নার হাইট সাধারণ মেয়েদের থেকে একটু বেশি। কিন্তু আমার থেকে চার ইঞ্চি শর্ট। প্রথম দেখায় ওকে মনে হয়েছিল পাঁচ ফুট পাঁচ হবে হয়ত। পরে জানলাম ও পাঁচ ফুট সাড়ে ছয়। লম্বাই বলা যায়। আমার ফর্মটা কোন ঝামেলা ছাড়াই ও কিনে দিল। এই জন্য থ্যাংকস, ট্যাংকস দিলাম। তারপর ফোন নাম্বারটাও চাইলাম, পরে এমন ফর্ম তুলতে কাজে লাগবে এই ভেবে। কিন্তু কে জানত এই মেয়েই যে আমার বউ হবে?

ফোন নাম্বার চালাচালির পর ক্যাম্পাসে আসলাম। আসতে না আসতেই দেখি সপ্না কল দিছে। বলল ওকে নিয়ে ঘুরতে যেতে। যেই মানুষটা আমার,চার সাড়ে চার ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর কষ্ট বাঁচায় দিল তার জন্য মিনিমাম কৃতজ্ঞতা দেখাতে হলেও আমার সেইদিন তার রিকোয়েস্টটা এক্সেপ্ট করা ছাড়া কোন উপায় ছিল না। গেলাম দেখা করতে। সারা দিন ঘুরলাম আমরা। অনেক এনজয় করেছিলাম। এমন করে ও প্রায়ই আমাকে কল দিত আর আমরা ঘুরতে যেতাম। পরে অবশ্য শুধু কৃতজ্ঞতা থেকে যাই নাই, ভালো লাগত তাই যেতাম। আমাদের মাঝে বেশ ভালই একটা রিলেশান বিল্ড আপ করেছিল। কিন্তু কিভাবে যে সেটা প্রেম হয়ে গেল সেটা আমার মাথায় ঢুকে নাই।একদিন সপ্না আমারে হাউমাউ কইরা কানতে কানতে কয় ও নাকি আমারে ভালবাসে। আমার আসলে বিয়ার আগে প্রেম জিনিসটা ভয় লাগত। পরে দেখা যাবে আমি যেই মেয়েটারে এতদিন ভালবাসতাম হ্যায় আমার ফ্যামিলিরে নেগলেক্ট করতাছে। যেটা আর যেই সহ্য করতে পারুক আর নাই পারুক আমি একদম সহ্য করতে পারি না। আরেকটা কারণ ছিল আমার মা। আমার আম্মু যদি না থাকত তাহলে হয়ত আমি আজকে এত ভালো অবস্থায় থাকতে পারতাম না। সত্যি বলতে কি আমাদের পরিবারটা চলত আমার আম্মার উপর। আব্বু কিছুই করত না। ডালে ডালে জীবন কাটাইত। আর আম্মা আমারে চাকরী কইরা আইন্যা খাওয়াছে,পড়াইছে,বড় করছে। তাই আম্মুরে কষ্ট দিতে এমন কি একটা কথা এদিক সেদিক করতেও খুব ভয় লাগত। আর তাছাড়া এস.এস.সি পরীক্ষায় রেজাল্ট খারাপ কইরা মানে আশানুরূপ রেজাল্ট করতে না পাইরা আম্মুরে খুব কষ্ট দিছিলাম। যদিও ইচ্ছা করে খারাপ করি নাই। হয়ত এটা একটা Irony fate ছিল। কিন্তু তখন আর আম্মুর মুখের দিকে লজ্জায় তাকাইতে পারি নাই। অবশ্য আম্মু কখনও আমাকে বকাঝকা করেছেন বলে আমার মনে পড়ে না,এমনকি আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধেও কখনও যান নাই। তাই প্রেম করলে হয়ত কিছু বলতেন না,তবুও আমার বিয়ে তো আর শুধু আমার বিয়েই না, আম্মুর ছেলেরও বিয়ে। তারও পছন্দ থাকতে পারে। তাই কোন দিন প্রেম ট্রেম করব চিন্তা করি নাই।কিন্তু এদিকে আবার সপ্নার কান্নাকাটি চলতাছিল। সব ভাইব্বা,চিন্তা কইরা সপ্নারে কইলাম, “প্রেম করতে পারি তবে তোমারে এমন হইতে হইবো যেন আম্মু তোমারেই তার ছেলের বউ হিসেবে পছন্দ করে, আর যদি আম্মা মানা করে তাহলে কিন্তু আমি কিছুই করতে পারুম না।।” ও কইল, “ঠিক আছে।” ব্যাস শুরু হইল আমাগো প্রেম।এখন আমাগো রিলেশানের সাত বছর চলতাছে। আর বিয়ের দুই বছর আজকে পূর্ণ হইল। এখন সপ্না আম্মার অনেক প্রিয় হয়ে গেছে। সারাদিন দুইজনে অনেক মজা করে। আর আম্মা সুখে আছে বলে আমিও খুশি। যাই হোক এবার আসি কাহিনীতে।সপ্নার বাসায় ঐদিন গেলাম বিকেল সাড়ে পাঁচটায়। মার্চ মাসের গরম চলছিল। ঐ দিন প্রচন্ড গরমও পড়েছিল। তবে সুন্দর ঝিরঝিরে বাতাস ছিল বিকেলটাতে। গায়ের টি শার্ট টাও ঘামে ভেজা। যার জন্য কিছুটা ঠাণ্ডা লাগছিল । সপ্নাদের ফ্ল্যাটটা ছিল বনশ্রীতে। এখন অবশ্য ওটা ভাড়া দেয়া। ফ্ল্যাটটায় একটুও কার্পণ্য করে নাই ডিজাইনার। বিশাল বিশাল রুম, প্রত্যেকটার সাথে একটা বিশাল ব্যলকনি। এর মাঝে ওদের বাসা আবার বারো তালায়,সেকেন্ড টপ ফ্লোর। মানে আলো বাতাসের কোন অভাব নাই। বাসাটার ইন্টেরিওর ডিজাইনিংটাও খুব যত্ন করে করা হয়েছে। আমার কাছে সবচেয়ে সুন্দর লাগে ওদের ওয়াশরুম গুলা। ফ্ল্যাটটাতে যেরকম টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছিল সেটা তখন খুব রেয়ার ছিল। আংকেল অনেক শৌখিনও ছিলেন,তার উপর টাকা পয়সার কোন অভাব ছিল না। হয়ত এ জন্যই এত সুন্দর একটা বাসা খুঁজে পেয়েছিলেন। তখন ভাবতাম কবে এমন একটা ফ্ল্যাটের মালিক হতে পারবো। পরে যখন টাকা পয়সা হইছে তখন আর ঐরকম ফ্ল্যাট পাই না। সব কমার্শিয়াল। ঢাকা, চট্টগ্রাম সব খুইজা ফালাইছি কিন্তু পাই নাই। আব্বু মানে আমার শ্বশুর যখন জানলেন ওটা আমার খুব প্রিয় তখন অবশ্য আমাকে ফ্ল্যাটটা দিয়ে দিতে চেয়েছিলেন । কিন্তু লজ্জায় পড়ে মানা করেছিলাম ।আমি লিফট থেকে নেমে সপ্নাদের বাসায় কল বেল দিতেই ও দরজা খুলল। একটা টি শার্ট আর ট্রাউজার পড়নে ছিল। আমি বাসাতে ঢুকে ব্যাগটা রেখে ড্রইং রূমে সোফাতে গা এলিয়ে দিলাম। ও আমার সামনে এসে মিটমিট করে হাসছিল। আমি এগুলা দেখে দেখে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। তাই নির্লিপ্ত ছিলাম।–কি খাবা?

এত্ত আওয়াজ তো করি নাই। এই কথাগুলা ওর কানের পাশ দিয়াও যাইতো না। মাঝে মাঝে ইচ্ছা হইতো তুইলা একটা আছাড় দেই। কিন্তু পরে আর দেয়ার দরকার হয় নাই। কারণ ওর ঘটঘটানি বন্ধ করার একাটা সুন্দর উপায় বের করেছিলাম।আমি বিছানায় শোয়া থেকে উঠে বসলাম । আমাকে উঠতে দেখে,শাওন,আমার রুমের সেই ছোট ভাই বলল, “ ভাইয়া,ঘুম ভাঙল?

Akhialamgir xx-74

sex dating in cropsey illinois

Akhialamgir xx-42

magazine article on dating violence

” বুঝলাম ওর কাছে বন্ধের নোটিশটা আগেই চলে এসেছে। ঐদিন ছিল শনিবার। তাই সেদিনই রওয়ানা হলে সাতদিনই আম্মুর সাথে থাকতে পারবো এই ভেবে আমি আর ও দুইজনই ঐ দিনই রওয়ানা দেয়ার প্ল্যান করলাম।টয়লেট কর্ম শেষ করে যখন রুমে আসলাম তখন দেখি শাওন সেই পুরোনো ঘটঘটানি শুরু করছে। ওরে ডাক দিলাম, “শাওন? –হ্যাঁ,পারবো।–তাহলে তুমি আঁক। আঁকা হইলে আমাকে দেখাইও। ঠিক আছে?–দাও না যা আছে,খুব খিদা লাগছে। চারটা টিউশনি শেষ করে আসছি। আগামী কয়েকদিনের পড়াও এডভান্স করে দিতে হইছে। ভালো লাগতেছে না।–তুমি বেশি সিনসিয়ার। দরকার কি ছিল এত লোড নেয়ার?–তুমারে আগেও কইছি এখনও কইতাছি যে আমি শুধু টাকার জন্য পড়াই না। আমি যদি ঢিলা দেই তাহলে আমার স্টুডেন্টের ভবিষ্যৎ অন্ধকার।ও ঠোঁটটাকে একটু বাঁকিয়ে বলল, “আচ্ছা, ঠিক আছে বাবা, বাদ দাও। তোমার জন্য আমি ডাইনিং সাজাইতেছি, তুমি একটু কষ্ট করে হাত মুখ ধুয়ে আসো।”আমার খুব ঘুম আসছিল তবুও গেলাম ওয়াশরুমে। একটু পর ডাইনিং এ এসে পুরা টাস্কি খেলাম। বারো সিটের একটা ডাইনিং এর আর এক ইঞ্চিও মনে হয় খালি ছিল না। পুরা টেবিলে হাজার রকমের নাস্তা।“এত নাস্তা খাবে কে?” ও যেন ভীষণ মজার একটা জিনিস দেখছে এমনভাবে ও ছোট্ট রিশাতকে দেখছিল। আমি কিছুই বলছিলাম না। চুপচাপ বসে ওর কাণ্ডকারখানা দেখছিলাম।একটু পর বলল, “এটা আবার কখন মাল ফেলতে পারবে? –তাহলেও খুব বেশি লাভ হবে না। চার পাঁচ মিনিট এদিক সেদিক হতে পারে। পুরা টাংকি খালি।–তোমার স্পার্ম কাউন্ট কিন্তু ভালো। অনেক বেড়িয়েছে।–তাই নাকি?

Akhialamgir xx-72

Free hot old vid sex chat

আমি খেঁচলে তো একটা বোটল এর মুখাও ভরে না।–তখন তো আর আমি থাকি না। যাকে দেখে তুমি হান্ড্রেড পারসেন্ট এক্সাইটেড হবা।ও বসা থেকে আবার আমার পাশে শুয়ে পড়ল। মনে হয় টায়ার্ড হয়ে গিয়েছিল। তাই রেস্ট নিচ্ছিল। কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে শুয়ে রইল। আর আমি পুরো পরিবেশটা এনজয় করছিলাম। একটু পর বলল, “আমাকে দেখবা না?

”–আমি আগেই তো কইলাম It’s up to you ।ও উঠে বলল, “উঠে বস।” আমি উঠে বসলাম। ঠিক বসলাম না,বাম হাতটা উপরে রেখে ডানকনুই এর উপর ভর দিয়ে আধ শোয়া হয়ে রইলাম। ও উঠে গিয়ে বিছানার ডান পাশে গিয়ে ডিম লাইটটার ঠিক নিচে দাঁড়ালো। হালকা গোলাপি আলো এসে ওর উপর পড়ছিলো। আর ওর চুলে সেটা যেন রিফ্লেক্ট করছিল। ওকে তখন সত্যিকারের সুন্দরী মনে হচ্ছিল আমার কাছে। আমার দিকে তাকিয়ে একটু হেসে মৃদু স্বরে বলল, “তোমার কাছে নারীর সংজ্ঞা কি আমি সেটা জানি না। তবে যতটুকু তোমাকে চিনেছি তাতে তোমাকে অনেক ভালো একটা মানুষ মনে হয়েছে। প্রতিটা ছেলের কাছেই ‘মেয়ে’ নামক শব্দটা একটা ফ্যন্টাসি থাকে। তোমার কাছেও এটা ফ্যন্টাসি আমি জানি। অনেক ছেলেরাই মেয়েদেরকে ভুল বুঝে। তোমার ধারণা কি সেটা আমি জানি না, আজকে আমি তোমার কাছে শুধুই আমি না, আমি তোমার কাছে পুরো নারী জাতিকে রিপ্রেজেন্ট করছি। ধরে নাও এটা আমার প্রতি তোমার ভালবাসার একটা গিফট ।”এরপর ও আস্তে করে পাঞ্চক্লিপ্টা খুলে ফেলল। ওর চুল গুলা পিঠ পর্যন্ত নেমে গেল। আমি একটাও কথা বলছিলাম না। শুধুই দেখছিলাম । ধীরে ধীরে ও টি-শার্টটা উপরে তুলতে লাগলো। সুন্দর একটা ফর্সা স্লিম পেট আমার চোখের সামনে ফুটে উঠল। আস্তে আস্তে ও টি-শার্ট খুলে ফেলল । দেখলাম ও টি-শার্টটার সাথে ম্যাচ করে ব্রা পড়েছিল। মেরুন কালারের টিশার্টের সাথে মেরুন কালারের ব্রা। খুব সুন্দর মানিয়েছিল। আমি অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম। একটু পর ব্রা টাও খুলে ফেলল। ব্রা খোলার সাথে সাথে ওর দুধ গুলো বেরিয়ে এল। বেশি বড়ও ছিল না আবার ছোটও না। ওর শরীরের সাথে ফিট ছিল। খানিক বাদে ও ট্রাউজারটাও খুলে ফেলল। ভেতরে আবার ম্যাচ করে প্যান্টিও পড়েছিল। কিছুক্ষণ পর ও সেটাও খুলে ফেলল। পুরো নগ্ন অবস্থায় ওকে অন্যরকম সুন্দর লাগছিল যেন স্বর্গের এক অপ্সরী । আমি সত্যিকারের বিমোহিত হওয়ার অনুভূতিটা অনুভব করছিলাম তখন। আমার কাছে মনে হল আমার পুরো জগৎটা ওর সৌন্দর্যের কাছে এসে থমকে দাড়িয়েছে।ও হাতদুটোকে কোমড়ে রেখে,মাথাটাকে একটু কাত করল একই সাথে ডান পায়ের উপর ভর দিয়ে,শরীরটাকে একটু বাঁকিয়ে দাঁড়ালো । তারপর আমার দিকে হাসিহাসি মুখে তাকিয়ে বলল, “দেখতে কেমন আমি?